মুক্ত মতামত

ধর্ম পুরোটাই ক্ষমতা দখল করার রাজনীতি। তসলিমা নাসরিন

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ইরানের সংসদে ‘হিজাব এবং সতীত্ব বিল’ পাশ হয়েছে। বিলটি মূলত পোশাক বিধি লঙ্ঘন করলে মেয়েদের শাস্তি দেওয়ার জন্য। বিলটির পক্ষে সই করেছিলেন ১৫২ জন, বিপক্ষে ৩৪ জন, আর ৭ জন সই করা থেকে বিরত থেকেছেন।

ইরানে হিজাব না পরার শাস্তি আগে ছিল ১০ দিন, বড়জোর ২ মাসের জেল। জরিমানা ছিল ৫০০০ থেকে বড়জোর ৫ লাখ রিয়াল। এখন শাস্তি আগের চেয়ে অনেক ভয়ংকর। এখন হিজাব না পরলে মেয়েদের দেওয়া হবে ১০ বছরের জেল। জরিমানা ১৮০ মিলিয়ন রিয়াল আর ৩৬০ মিলিয়ন রিয়ালের মধ্যে। ইরানজুড়ে যে হিজাববিরোধী আন্দোলন হলো, যে আন্দোলনে প্রায় ৫০০ আন্দোলনকারীকে হত্যা করা হলো, সারা বিশ্বের প্রগতিশীল মানুষ এবং সংগঠন যে আন্দোলনকে সমর্থন করলো, সেই আন্দোলনের ফল, সকলে ভেবেছিল, মেয়েদের পক্ষে যাবে, ইরানের মেয়েরা বাধ্যতামূলক হিজাব থেকে মুক্তি পাবে, কিন্তু না, হিজাব এবং সতীত্ব আইন আরও বেশি কঠোর হয়ে, আরও বেশি হিংস্র হয়ে, আরও বেশি নির্মম হয়ে মেয়েদের নির্যাতন করার জন্য তৈরি হয়েছে। জগৎ স্তম্ভিত।

ইসলামী বিপ্লবের পর: ১৯৭৯ সালের ইসলামী বিপ্লবের পর ইরানি মেয়েদের জীবনে বড় এক পরিবর্তন এসেছে। ইরানের মৌলবাদি সরকার মেয়েদের জন্য হিজাব, এবং ঢিলেঢালা পোশাক বাধ্যতামূলক করেছে। সেই প্রথম ইরানে পোশাক বিধি এলো। এর আগে ইরানের কোনও মেয়ে কি হিজাব পরতো না? পরতো। যার ইচ্ছে পরার, পরতো। যার ইচ্ছে না-পরার, পরতো না। মেয়েরা সমুদ্রের ধারে বিকিনি পরে রৌদ্রস্নান করতো। মিনিস্কার্ট পরে রাস্তায় ঘুরে বেড়াতো। মোদ্দা কথা, মেয়েদের যে পোশাক পরার ইচ্ছে, তা পরার স্বাধীনতা তাদের ছিল। মৌলবাদিরা ক্ষমতায় আসার পর প্রথম যে কাজটি করলো, তা হলো, মেয়েদের স্বাধীনতা কেড়ে নিল। মৌলবাদিরা যে রাজ্যের বা রাষ্ট্রেরই ক্ষমতা কুক্ষিগত করে, সে রাজ্যে বা রাষ্ট্রেই মেয়েদের স্বাধীনতা এবং অধিকারের কিছু আর অবশিষ্ট থাকে না। মেয়েদের নিতান্তই যৌনবস্তু, পুরুষের দাসী এবং সন্তান উৎপাদনের যন্ত্র হিসেবে দেখা হয়।

হিজাববিরোধী আন্দোলন: ইরানের মেয়েরা বহু বছর যাবৎ বাধ্যতামূলক হিজাবের বিরুদ্ধে লড়ছে। কয়েক বছর আগে এক মেয়ে রাস্তার পাশে রাখা ইউটিলিটি বাক্সের ওপর দাঁড়িয়ে মাথা থেকে তার সাদা স্কার্ফটি খুলে একটি লাঠির মাথায় স্কার্ফটি নিয়ে জনবহুল রাস্তার জনতাকে দেখিয়ে লাঠিটি নেড়েছিল। এই ছবিটি প্রচারিত হওয়ার পর ইরানের বিভিন্ন শহরের মেয়েরা একই কাজ করেছে। রাস্তার ইউটিলিটি বাক্সের ওপর দাঁড়িয়ে লাঠির মাথায় সাদা হিজাব নিয়ে নাড়িয়েছে। মসজিদের গম্বুজে উঠেও কিছু মেয়ে মাথার হিজাব খুলে নাড়িয়েছে। এই নাড়ানো মানে বাধ্যতামূলক হিজাবের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ। এই প্রতিবাদের মাধ্যমে তারা একটি কথাই বলতে চেয়েছে, যারা হিজাব পরতে আগ্রহী, তারা হিজাব পরবে, যারা পরতে চায় না, তারা পরবে না। কিন্তু মৌলবাদি রাষ্ট্র মেয়েদের হিজাব না পরার অধিকার দিতে রাজি নয়। প্রতিবাদী নারীদের এক এক করে গ্রেফতার করেছে, অত্যাচার করেছে, জেলে ভরেছে। মাশা আমিনী নামের এক বাইশ বছরের মেয়ের হিজাব পরায় কিছু ভুল ধরেছে ধর্মীয় নীতি-পুলিশ। মাশার হিজাবের দৈর্ঘ্য নাকি কম ছিল। মাশাকে গ্রেফতার করে তাকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে তারা। ঘটনাটি ঘটেছে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। মাশার মৃত্যুর খবর প্রচার হওয়ার পর ইরানের রাস্তায় হাজার হাজার নারী পুরুষ বেরিয়ে পড়েছে, বাধ্যতামূলক হিজাবের বিরুদ্ধে আবারও সরব হয়েছে। সারা পৃথিবীর শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ ইরানের হিজাববিরোধী প্রতিবাদকে সমর্থন জানিয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইরানের প্রতিবাদী মেয়েরা মিছিলে তাদের হিজাব খুলে শূন্যে উড়িয়েছে। কেউ কেউ তো জনসম্মুখে তাদের হিজাব আগুনে পুড়িয়ে প্রতিবাদ করেছে। কেউ কেউ নিজের চুল কেটে প্রতিবাদ করেছে।

মেয়েদের চুল: একজন ধার্মিক ব্যক্তি আমাকে সেদিন বললেন, ‘আল্লাহতায়ালা মেয়েদের মাথায় যে চুল দিয়েছেন, তা লুকিয়ে রাখা মানে আল্লাহতায়ালার সৃষ্টিকে অস্বীকার করা। যদি মেয়েদের চুলে সমস্যা থাকতো, তাহলে চুল ছাড়াই তিনি মেয়েদের পয়দা করতেন। শরীরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গে ভুল ধরা মানে আল্লাহর সৃষ্টিতে ভুল ধরা। সৃষ্টিকে পুজো করলে স্রষ্টাকে পুজো করা হয়।’ এমন ধার্মিকের সংখ্যা সারা পৃথিবীতেই কমে গেছে। এখন রাজনৈতিক ধার্মিকের সংখ্যা বাড়ছে। সারা বিশ্বে ধর্মগুরুরা চিৎকার করে যেসব বক্তৃতা দেন, সেসব ধর্মের বক্তৃতা নয়, সেসব বক্তৃতা ধর্মকে ব্যবহার করা রাজনৈতিক বক্তৃতা। ধর্মের জন্য বক্তৃতার প্রয়োজন হয় না। যার ধর্ম সে পালন করবে, যে যেভাবে পালন করতে চায়, সে সেভাবে করবে। ধর্ম যদি মানুষকে এই অধিকার না দেয়, তবে সেটি আর ধর্ম নয়।

বাংলাদেশ এবং হিজাব: বাংলাদেশেও মেয়েদের হিজাব পরানোর জোর আয়োজন চলছে। সত্তর দশক বা আশির দশকের বাংলাদেশ এবং এখনকার বাংলাদেশে আকাশ-পাতাল পার্থক্য। এখন মেয়েদের শরীর নানা রঙের বোরখায়, নিকাবে, হিজাবে, হাতমোজায়, পা-মোজায় ঢেকে দেওয়া হচ্ছে। ষাট-সত্তর-আশির দশকে কি বাংলাদেশের মানুষ ধার্মিক ছিল না? ছিল। এখন যত ধার্মিক, তার চেয়ে নেহাত কম ছিল না। তাহলে কী এমন ঘটেছে যে মেয়েদের পোশাকে এমন বিস্তর পরিবর্তন আনতে হয়েছে? কেন মেয়েদের পোশাকে ধর্ম বহন করতে হচ্ছে? হচ্ছে, কারণ এখনকার ইসলামটি ধর্মীয় ইসলাম নয়, এখনকার ইসলামটি রাজনৈতিক ইসলাম। ওয়াজে যে ইসলামটির প্রচার হয়, তা ধর্ম নয়, পুরোটাই রাজনীতি।

ক্ষমতা দখল করার রাজনীতি। ক্ষমতা দখল করার ইচ্ছে মৌলবাদিদের প্রচণ্ড। তারা তাদের ইচ্ছের ঝান্ডা উড়িয়ে দিয়েছে, সেই ঝান্ডাই হলো মেয়েদের বোরখা, মেয়েদের নিকাব, মেয়েদের হিজাব, মেয়েদের ফুলহাতা জামা বা ব্লাউজ। এখন মৌলবাদিরা বলে বেড়াচ্ছে, হিজাব হচ্ছে ‘চয়েজ’। ক্ষমতার ওঠার সিঁড়ি বেয়ে যত তারা ওপরে উঠবে, অথবা ক্ষমতাসীন দুর্বল সরকারকে যতই তারা নিয়ন্ত্রণ করার সুযোগ পাবে, ততই তারা হিজাবকে আর ‘চয়েজ’ বলবে না, হিজাবকে ‘বাধ্যতামূলক’ করবে। ইরানে ঠিক এটিই হয়েছে। শিয়া সুন্নিতে বিরোধ থাকতে পারে, কিন্তু তাদের মৌলবাদি চরিত্রে কোনও বিরোধ নেই। দুই সম্প্রদায়ের টার্গেট নারী। নারীকে তারা পরাজিত করবে, নারীর শিক্ষায় বাধা দেবে, নারীকে স্বাবলম্বী হতে দেবে না, নারীকে তার আত্মসম্মান নিয়ে বাঁচতে দেবে না। নারী যেন নরকের কীট, নারীর শরীর থেকে যেন দুর্গন্ধ বেরোচ্ছে, নারীর শরীরে যেন জগতের সমস্ত পাপ বাসা বেঁধেছে, তাই নারীর আপাদমস্তক ঢেকে রাখতে হবে।

নারীরা তাদের শরীর নিয়ে জনসম্মুখে আসার যোগ্য নয়। নারী যেন আবর্জনা, তাদের লুকিয়ে থাকতে হবে বস্তার মধ্যে। তাদের চুল যেন আলো বাতাস পাওয়ার যোগ্য নয়। পুরুষের যৌন ইচ্ছে জাগরিত হবে নারীর চুল দেখলে, সে কারণে নারীকে তার চুল আড়াল করতে হবে। নারীর বাহু দেখলে, পা দেখলে পুরুষ লোভ করবে, তাই নারীকে তার হাত পা ঢেকে রাখতে হবে। সপ্তম শতাব্দিতে যে কারণ দেখিয়ে নারীকে আবৃত করা হতো, একবিংশ শতাব্দির বিজ্ঞানসমৃদ্ধ সভ্য পৃথিবীতে একই কারণ দেখিয়ে নারীকে আবৃত করা হচ্ছে। ছলে বলে কৌশলে যত মেয়েদের হিজাব পরাতে পারবে মৌলবাদিরা, তত তাদের সামাজিক জয় নিশ্চিত হবে। সামাজিক জয় হাতে এলে রাজনৈতিক জয় সহজ হয়ে ওঠে। নারীরা মৌলবাদিদের রাজনৈতিক জয়ের সিঁড়ি ছাড়া আর কিছু নয়। রাজনৈতিক জয় পেয়ে গেলে দেশের সর্বনাশ করবে তারা। ধর্মনিরপেক্ষতাকে দূর করবে, অমুসলিমদের বিদেয় করবে, নারীর শিক্ষা, স্বাধীনতা আর স্বনির্ভরতাকে চিরকালের জন্য কবর দিয়ে দেবে। ইরানে, আফগানিস্তানে, সৌদি আরবে কী ঘটেছে, কী ঘটছে, তা তো আমরা দেখতেই পাচ্ছি।

বাংলাদেশ কি ইরানের পদাঙ্ক অনুসরণ করবে?

বাংলাদেশে যারা হিজাবের পক্ষে চিৎকার করছে, তারা ইরানের মেয়েদের দেখুক। হিজাব না পরলে বা হিজাব পরায় একটু এদিক ওদিকে হলেই বা চুল দৃশ্যমান হলেই ইরানি মেয়েদের গ্রেফতার করা হয়, থানায় নিয়ে তাদের অকথ্য অত্যাচার করা হয়, তাদের হত্যা করা হয়, তাদের প্রচুর টাকা জরিমানা দিতে হয়, জেল খাটতে হয়। ইরান কিন্তু একসময় ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশের মতো উদার ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে মৌলবাদের উত্থান ইরানকে এমন নারীবিদ্বেষী বর্বর বানিয়েছে। বাংলাদেশে মৌলবাদের যে উত্থান শুরু হয়েছে, এবং মেয়েরা হিজাব বোরখা পরে মৌলবাদিদের রাজনৈতিক ইসলামের পথ যেভাবে সুগম করছে, তাতে কিন্তু বাংলাদেশে ইরানের অবস্থা আসতে খুব বেশি দেরি নেই। মৌলবাদিরা মাদরাসার মেয়েদের হিজাব বা বোরখা পরাতে বাধ্য করে। এবার তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেয়েদের হিজাব পরতে বাধ্য করতে আদাজল খেয়ে লেগেছে।

শুধু হিজাব পরাতে বাধ্য করছে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্গনকেও তারা নিজেদের অধিকারে নিতে চাইছে। কিছুদিন আগে ধর্মগ্রন্থ তেলাওয়াতের আয়োজন করা হলো কলাভবনের বটতলায়। তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা আসলে তাদের মূল উদ্দেশ্য নয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিণত করাই মূল উদ্দেশ্য। যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মানবাধিকারের আন্দোলন যুগ যুগ ধরে হচ্ছে, সেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে, প্রখ্যাত ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে, প্রগতিশীল ছাত্র আন্দোলনের পীঠস্থানকে একটি নির্দিষ্ট ধর্মে মুড়িয়ে দেওয়া হলে ধর্মনিরপেক্ষতাকে দেশের সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে, সমাজ থেকে, রাষ্ট্র থেকেও বিদেয় করতে সুবিধে হবে বৈকি। এমন ঘটনা ঘটিয়ে ফেলতে পারলে রাজনৈতিক ইসলামের জয়জয়কার পড়ে যাবে।

প্রতিটি মেয়েকে হিজাব পরাতে বাধ্য করা মৌলবাদিদের গভীর ষড়যন্ত্র। তাদের এই ষড়যন্ত্র সফল হওয়ার আগেই বাংলাদেশের ফুটবল দলের মেয়েরা মাঠজুড়ে হিজাব ছাড়া দাপিয়ে খেলেছে, এবং জিতেছে। মৌলবাদিরা কিন্তু দেশের মুখ উজ্জ্বল করেনি কোনওদিন। হিজাববিহীন মেয়েরাই বরং উজ্জ্বল করেছে। সুতরাং দেশের সরকারের দায়িত্ব মানবাধিকার বিরোধী, বাকস্বাধীনতা বিরোধী, নারীবিদ্বেষী মৌলবাদিদের নয়, বরং গুণী মেয়েদের কদর করা। এই মেয়েরাই দেশের সম্পদ।

মনে রাখতে হবে নারীই জাতির ভবিষ্যৎ। নারীকে দাবিয়ে না রেখে, তাদের বস্তাবন্দি, ঘরবন্দি না করে তাদের স্বাধীনতা আর অধিকারে হস্তক্ষেপ না করে তাদের স্বতঃস্ফূর্তভাবে বেড়ে উঠতে দেওয়া হোক, তারা শুধু নিজেরা সমৃদ্ধ হবে না, তারা সমাজকে এবং রাষ্ট্রকে সমৃদ্ধ করবে। মেয়েদের উন্নতির পথ রোধ করে দাঁড়িয়ে আছে চূড়ান্ত অপশক্তি ধর্মীয় রাজনীতি। মেয়েদের পথের কাঁটা সরিয়ে ফেলার দায়িত্ব দেশের সকল শুভানুধ্যায়ীর। সবচেয়ে বড় দায়িত্ব সরকারের।

ইরানের মেয়েদের পক্ষে জগৎ দাঁড়াক: ইরানের নতুন হিজাব আইনটি বর্বর। হিজাব না-পরাকে মানুষ-খুনের কাতারে আনা হয়েছে। ১০ বছরের কারাদণ্ড কখনও কোনও পোশাক বিধি লঙ্ঘনের শাস্তি হতে পারে না। এই নারীবিরোধী আইনের নিন্দা জগতের সকল মানুষ করছে। বাংলাদেশ থেকেও এই বর্বর আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ধ্বনিত হোক।

লেখক : নির্বাসিত লেখিকা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আরও পড়ুন:

Back to top button