এক্সক্লুসিভ

এবার নির্বাচনে বাঁধা প্রদানকারী কর্মকর্তাদের উপর ম্যাগনিটস্কি অ্যাক্টের অনুরূপ নিষেধাজ্ঞার জন্য ১৫জন সিনেটর ও এমপির চিঠি

অস্টেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্থনি আলবেনিজকে ১৫জন সিনেটর ও এমপি’র চিঠি

বাংলাদেশে অনুষ্ঠিতব্য আগামী জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং অংশগ্রহণমূলক পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত হওয়ার ক্ষেত্রে বাঁধা প্রদানকারী ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপর ম্যাগনিটস্কি অ্যাক্টের অনুরূপ নিষেধাজ্ঞার আরোপ করার সিদ্ধান্ত নেবার আহবান জানিয়ে অস্টেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্থনি আলবেনিজকে ১৫জন সিনেটর ও এমপি’র চিঠি।

চিঠিটি হুবুহু তুলে দেওয়া হল।

মাননীয় অ্যান্থনি আলবেনিজ এমপি প্রধানমন্ত্রী
সংসদ ভবন
ক্যানবেরা আইন ২৬০০
ইমেলের মাধ্যমে: [email protected]
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
অস্ট্রেলিয়া
তারিখঃ ৪ অক্টোবর ২০২৩
বিষয়ঃ বাংলাদেশের নির্বাচন
আমরা, নিম্নস্বাক্ষরিত এমপিরা, বাংলাদেশে চলমান মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে তাদের সম্ভাব্য প্রভাব সম্পর্কে আমাদের উদ্বেগ প্রকাশ করতে এই চিঠি লিখছি। আমরা বিশ্বাস করি যে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং অংশগ্রহণমূলক পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

যে কারণে, একটি গণতান্ত্রিক নির্বাচন পরিচালনার জন্য বাংলাদেশের প্রচেষ্টার সমর্থনে একটি নতুন ভিসা নীতির বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সাম্প্রতিক ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা আপনাকে লিখছি। মার্কিন নীতিমালাটি নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে দুর্বল করার জন্য দায়ী সরকারি কর্মকর্তা, রাজনৈতিক দলের সদস্য, আইন প্রয়োগকারী, বিচার বিভাগ এবং নিরাপত্তা পরিষেবা সহ সন্দেহভাজন বাংলাদেশি ব্যক্তিদের জন্য ভিসা সীমাবদ্ধ করব।

আমরা গণতান্ত্রিক নির্বাচন প্রক্রিয়াকে ক্ষুন্ন করে এমন যেকোনো কাজকে উদ্বেগজনক বিবেচনা করি, যেমন ভোট কারচুপি, ভোটারদের ভয় দেখানো বা রাজনৈতিক দল, ভোটার, সুশীল সমাজ বা মিডিয়াকে তাদের মতামত প্রচার করা থেকে বিরত রাখার ব্যবস্থা। বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে ক্ষুণ্ন করার জন্য দায়ী ব্যক্তিরা যাতে অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করতে না পারে তা নিশ্চিত করার জন্য ম্যাগনিটস্কি নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে হোক বা অন্য কোন উপায়ে, আমাদের সরকারএর পক্ষ থেকে অনুরূপ নীতি অনুসরণ করা অত্যাবশ্যক।

বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দলের সিনিয়র সদস্যদের দ্বারা ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ এবং সাধারণ নাগরিক, সামাজিক কর্মী, শ্রমিক-কর্মচারী নেতা এবং বিরোধী রাজনৈতিক দলের সদস্যদের উপর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে আমরা শঙ্কিত। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এবং মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর বাংলাদেশের বিষয়ে তাদের প্রতিবেদনে এই অপরাধগুলো নথিভুক্ত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়াজেদের সরকারের, বিশেষ করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন, যেটিকে অসংখ্য আন্তর্জাতিকভাবে স্বনামধন্য এনজিও সরকারী “ডেথ স্কোয়াড” হিসেবে চিহ্নিত করেছে, তাদের নির্যাতনের প্রতিবেদনগুলি গভীরভাবে উদ্বেগজনক। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন ছাড়া বিচারবহির্ভূত হত্যা ও বলপূর্বক গুমের ঘটনা সম্ভব নয় বলে স্বীকার করেছেন র‌্যাবের দুই কর্মকর্তা ও সাবেক সদস্যরা।

আসন্ন নির্বাচন যাতে অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য আন্তর্জাতিক মানদণ্ড পূরণ করে তার নিশ্চয়তা দিতে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে আমরা সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই। আমরা আপনাকে এ বিষয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশনারকে অবহিত করার আহ্বান জানাচ্ছি।
আমরা বিশ্বাস করি যে বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করার জন্য জাতিসংঘের মানবাধিকার হাইকমিশনারের অফিসের নির্বাচন সংক্রান্ত মানবাধিকার মানদণ্ড বাস্তবায়ন এবং অনুসরণ করা উচিত। ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের বিগত দুটি জাতীয় নির্বাচন বিতর্ক এবং অনিয়মে ভরা ছিল, যার মধ্যে ভয় দেখানো এবং বিরোধী রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ এবং মিডিয়ার বিরুদ্ধে সহিংসতা ছিল। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলোর প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেই সময় বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, গুম এবং সাধারণ নাগরিক, সামাজিক কর্মী, শ্রমিক-কর্মচারী নেতা এবং বিরোধী রাজনৈতিক দলের সদস্যদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে।

২০২৩ সালের শেষের দিকে বা ২০২৪ সালের শুরুতে বাংলাদেশে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের নির্বাচনে যা দেখা গেছে তা প্রতিরোধ করতে আমরা নির্বাচনের আগে বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধিদের সাথে একটি গঠনমূলক সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য সরকারকে অনুরোধ করছি। সেই লক্ষ্যে আমরা চাইছি অস্ট্রেলিয়া সরকার:

১। বাংলাদেশ সরকারের কাছে স্পষ্টভাবে ব্যক্ত করবে যে, অস্ট্রেলিয়ার প্রত্যাশা নির্বাচনটি জাতিসংঘের মানবাধিকার হাইকমিশনারের অফিসের নির্বাচন সংক্রান্ত মানবাধিকার মানদণ্ড অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে;
২। স্বাধীন নির্বাচনী পর্যবেক্ষকদের নির্বাচনকালীন সময়ে নিরবচ্ছিন্ন প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা সহ বাংলাদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন তত্ত্বাবধান ও পরিচালনায় সহায়তা করার জন্য বাংলাদেশ সরকার জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে কাজ করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকবে; এবং
৩। বাংলাদেশ সরকারকে সার্বজনীনভাবে জানিয়ে দিবে যে, কোনো ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা গণতান্ত্রিক নির্বাচনী মানদণ্ডের গুরুতর লঙ্ঘনকে সমর্থন, প্রচার বা অংশগ্রহণ করলে, তারা তাদের উপর অস্ট্রেলিয়ায় ম্যাগনিটস্কি অ্যাক্টের অনুরূপ নিষেধাজ্ঞার আরোপ করার জন্য বিবেচনা করা হবে।
কূটনীতির মাধ্যমে আইনের শাসন এবং মানবাধিকারের প্রচারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সরকার হিসাবে, আমরা আশা করি আপনি এই চিঠিপত্রটিকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করবেন এবং আমরা যে বিষয়গুলি উত্থাপন করেছি সেগুলোর অগ্রগতি আপনার কাছ থেকে শোনার জন্য আমরা উন্মুখ হয়ে অপেক্ষা করছি।

আপনার বিশ্বস্ত,
নিম্নস্বাক্ষরিত এমপিরা
সিনেটর ডেভিড শুব্রিজ
সিনেটর জর্ডন স্টিল-জন
আদম ব্যান্ড এমপি
সিনেটর লরিসা ওয়াটার্স
সিনেটর নিক ম্যাককিম
সিনেটর জ্যানেট রাইস
সিনেটর বারবারা পকক
এলিজাবেথ ওয়াটসন-ব্রাউন এমপি
স্টিফেন বেটস এমপি
সিনেটর মেহরীন ফারুকী
সিনেটর পিটার হুইশ-উইলসন
সিনেটর ডোরিন্ডা কক্স
সিনেটর পেনি অলম্যান-পেইন
ম্যাক্স চ্যান্ডলার-মাথার এমপি
সিনেটর সারাহ হ্যানসন-ইয়ং

বাংলা ম্যাগাজিনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Back to top button