বিনোদনব্রেকিং নিউজ

কলকাতায় প্রশংসা কুড়াচ্ছে ‘মহানগর’

বিনোদোন প্রতিবেদক : কলকাতার ওটিটি প্লাটফর্ম হইচই- এ মুক্তি পেয়েছে বাংলাদেশি ওয়েব সিরিজ ‘মহানগর’। আশফাক নিপুণের পরিচালনায় এতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে ওসি হারুনের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন দেশের নন্দিত অভিনেতা মোশাররফ করিম।  আজ সোমবার ২৮ জুন ওয়েব সিরিজটি নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন করেছে কলকাতার জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম ‘আনন্দবাজার’।

যার অভিনয় দুই বাংলার দর্শককে মুগ্ধ করে চলেছে দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে। এই অভিনেতার পাশাপাশি সিরিজটিতে আরও দেখা গেছে শ্যামল মাওলা, জাকিয়া বারী মম, লুৎফর রহমান জর্জ, মোস্তাফিজুর নুর ইমরান, নাসিরউদ্দিন খান প্রমুখ।

এই বিভাগের আরও সংবাদ

মুক্তির অল্প সময়ের মধ্যেই ‘মহানগর’ আলোচনায় এসেছে। দুই বাংলাতেই প্রশংসিত হচ্ছে। বিশেষ করে কলকাতার দর্শক মোশাররফ করিমের অভিনয়ে মুগ্ধতা প্রকাশ করছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ওপার বাংলার ঐতিহ্যবাহী সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার অনলাইনেও ‘মহানগর’ সিরিজটি নিয়ে প্রশংসা ছাপা হয়েছে। মজার ব্যাপার হলো, এই প্রথমবার তাদের সংবাদে দেখা গেল বাংলাদেশি শিল্পীদের সঠিক বানানের নাম।

রিপোর্টে আনন্দবাজার বলছে, ‘বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার পটভূমিকায় তৈরি ওয়েব সিরিজ ‘মহানগর’। এখানে যে দুর্নীতির তুলে ধরা হয়েছে, তা অনেক দেশের মহানগরেই অহরহ ঘটে চলে। শহরের অভিজাত বৃত্তের এক রাতের পার্টি থেকে ঘটনা শুরু হয়। শিল্পপতি-রাজনীতিবিদ আলমগির চৌধুরীর দাপুটে ছেলে আফনান চৌধুরী ক্ষমতার দর্পে তাস খেলাতেও হারতে চায় না। এটুকুতেই তার মুড খারাপ হয়ে যায়।

দেখা যায়, নিজের বান্ধবীকে তুচ্ছ করে সে পার্টি থেকে বেরিয়ে আসে। এরপর বেসামাল আফনানের গাড়িতে চাপা পড়ে একজন সাধারণ মানুষ। পুলিশ তাকে থানায় ধরে নিয়ে এলে চারদিকে হইচই পড়ে যায়। আলমগির চৌধুরী যে-কোনও মূল্যে ছেলেকে ছাড়ানোর জন্য প্রতিনিধি পাঠায় থানায়। ওসি বড় অঙ্কের টাকা ঘুষ নেন। আফনানকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু থানার এসি শাহানা সৎ, সে আফনান চৌধুরীকে প্রভাবশালী ব্যক্তির পুত্র হিসেবে কোনও ছাড় দিতে রাজি নয়।

সাব-ইন্সপেক্টর মলয়ও ছুটে বেড়ায় সত্যের সন্ধানে। সারা রাত এই সব নিয়ে থানায় জমজমাট নাটক। ঘুষের টাকার জোরে আফনানকে কি থানা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যেতে পারে তার প্রভাবশালী বাবা? এখানেই চমক।

দেখা যায়, আফনানকে পুলিশ শেষ পর্যন্ত ছাড়ে না। নিয়ে যায় আদালতে। ঘুষ নেওয়ার দায়ে ওসি হারুন গ্রেফতার হয় ঠিকই, কিন্তু তার বুদ্ধিতেই আফনানের অন্য অপরাধের কথা বেরিয়ে আসে। অ্যাক্সিডেন্টের থেকেও বড় অন্যায় সে করে এসেছিল পার্টিতে।

আট পর্বের এই ওয়েব সিরিজের পর্বগুলির নাম দিয়েছেন পরিচালক ‘ঈশানের মেঘ’, ‘চিচিং ফাঁক’, ‘শাপে বর’, ‘গলার কাঁটা’, ‘অমাবস্যার চাঁদ’, ‘অন্ধের যষ্ঠি’, ‘গোড়ায় গলদ’ এবং ‘কিস্তিমাত’। পরিচালক একটি থ্রিলার নির্মাণ করতে চেয়েছেন বলেই সম্ভবত এই সব সাংকেতিক উপ-শিরোনাম। কিন্তু ‘মহানগর’ সমাজ-বাস্তবতা তুলে ধরতে যতটা সফল, শিহরণময় ঘটনা দর্শকের মনে প্রবাহিত করে দেওয়ার ক্ষেত্রে ততটা সফল নয়।

এই সব বিক্ষিপ্ত ঘটনা এতটা জায়গা নিয়ে নিয়েছে যে, শেষে আফনান চৌধুরীর অধিক-গুরুতর অপরাধ আবিষ্কৃত হওয়ার চমকটি অতি মৃদু লাগে। অথচ এটাই ছিল মাস্টার স্ট্রোকের জায়গা। পরিচালক আশফাক নিপুণ যথেষ্ট কৃতিত্ব দেখালেও চিত্রনাট্য আদৌ ‘নিপুণ’ নয়।

প্রথম সিজনের শেষ পর্বের শেষ মুহূর্তে ঘুষখোর দারোগা হারুনকে ঘিরে একটি রহস্য তৈরি করা হয়েছে। আসলে কি সে কৌশল হিসেবে ঘুষ নিয়েছিল, ভিতরে ভিতরে সৎ? শেষ সংলাপে হারুন বলতে চেয়েছে যে, সিস্টেমের ভিতরে এত ভূত… তাদের সঙ্গে লড়তে গেলে নিজেদেরও মাঝে মাঝে ভূত হতে হয়।

আশা করা যায়, দ্বিতীয় সিজনে হারুন-রূপী মোশারফ করিমের চরিত্রটি আরও স্পষ্ট হয়ে উঠবে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

Flowers in Chaniaগুগল নিউজ-এ বাংলা ম্যাগাজিনের সর্বশেষ খবর পেতে ফলো করুন।ক্লিক করুন এখানে


বাংলা ম্যাগাজিন ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন



এই বিভাগের আরও সংবাদ

Back to top button