জবস অ্যান্ড ক্যারিয়ারজানা অজানা

অনলাইনে আয় করার সেরা কয়েকটি উপায়

শুধুমাত্র যেকোন একটি বিষয়ে আপনার কাজ করার অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে। একাধিক দক্ষতা থাকার কোনো প্রয়োজন নেই।

অনলাইনে আয় করার সেরা কয়েকটি উপায় । বর্তমান সময়ে অনলাইনে আয় একটি জনপ্রিয় আয়ের উৎস হিসেবে পরিণত হয়েছে। এখানে রয়েছে বিশাল সম্ভাবনা। অনলাইনে আয় এর কোন লিমিট নেই। অনলাইনে আপনি আপনার স্ক্রিল অনুযায়ী বিশাল পরিমাণ অর্থ ইনকাম করতে পারবেন। যা একটি চাকরি তুলনায় রাত আর দিন। অনলাইনে একটি কাজে যত দহ্মতা অর্জন করা যায় ইনকাম তত বাড়তে থাকে। বর্তমান যুগ তথ্য প্রযুক্তির যুগ।

প্রযুক্তির কল্যাণে এখন মানুষ ঘরে বসে অনলাইনে কাজের বিনিময়ে অর্থ উপার্জন করছে। তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে জানেন না এমন মানুষ খুজে পাওয়া যাবে না বললেই চলে। কেননা আধুনিক বিশ্বের প্রায় অধিকাংশ মানুষ ডিজিটাল ডিভাইসের উপর নির্ভরশীল। বর্তমানে বাংলাদেশ সহ বিভিন্ন দেশের লক্ষ লক্ষ মানুষ অনলাইন ইনকাম এর মাধ্যমে নিজেদেরকে স্বাবলম্বী করছে।

এই বিভাগের আরও সংবাদ

বর্তমান সময়ে সকালে ঘুম থেকে উঠা থেকে শুরু করে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত মানুষ প্রযুক্তির উপর অনেকাংশে নির্ভরশীল। অনলাইনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের জন্য মানুষের এই প্রযুক্তি ও অনলাইন নির্ভর মানসিকতা অনেক সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে। মানুষ এখন অনেক প্রতিকূলতা অনুভব করছে। এত প্রতিকুলতার ভিতর আশার আলো এটাই যে কর্ম ক্ষেত্রে নতুন একটি সম্ভাবনা যোগ হয়েছে। তা হল- অনলাইন ইনকাম!!! এই পোস্টে অনলাইন ইনকামের মাধ্যমসহ অনলাইনের কোন কাজটি করলে আপনি দ্রুত সফলতা পাবেন এবং দীর্ঘস্থায়ী ও ভালো পরিমাণ অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন তার দিক-নির্দেশনা আছে।

১। গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম

গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম

ওয়েবসাইট বা ব্লগ থেকে অনলাইন ইনকাম করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সহজ উপায় হচ্ছে গুগল এডসেন্স। এটি গুগলের একটি বিজ্ঞাপন প্ল্যাটফর্ম। আপনার যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে তাহলে খুব সহজেই গুগল এডসেন্স এর বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে এখান থেকে ইনকাম করতে পারবেন। শুধুমাত্র আপনার একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ থাকলেই সেখান থেকে ইনকাম করা সম্ভব নয় যদি সে ওয়েবসাইটে ভিজিটর না থাকে। ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করার সবচেয়ে ইম্পরট্যান্ট বিষয় হচ্ছে ভিজিটর। আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর যতদিন থাকবে আপনি তত বেশি ইনকাম করতে পারবেন। ওয়েবসাইটে ভিজিটর আনার জন্য আপনাকে কিছু কিছু এসইও ট্রিক্স শিখতে হবে। আপনি যখন আপনার ওয়েবসাইটের এসইও করবেন তখন আপনার ওয়েবসাইটে আস্তে আস্তে ভিজিটর আসা শুরু করবে। এবং আপনার কাজের সাথে সাথে ভিজিটরের পরিমাণ বাড়তে থাকবে এবং আপনার ইনকাম এর পরিমাণ বাড়তে থাকবে। আপনার ওয়েবসাইটে যখন ভিজিটর আসবে তখন সেই ভিজিটরের মাধ্যমে গুগল এডসেন্স আপনার ওয়েবসাইটে ব্যবহার করে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন। আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর রা যখন গুগল এডসেন্সের এড দেখবে বা এডে ক্লিক করবে তার মাধ্যমে আপনার এডসেন্স একাউন্টে $ ডলার যোগ হবে, মানে আপনার ইনকাম হবে। তবে গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য আপনার ওয়েবসাইটের কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। যা গুগোল তাদের ব্লগে গুগল এডসেন্স এর নিয়ম নীতি শেয়ার করেছে। আপনি চাইলে সেই সকল নিয়ম-নীতি গুগল এডসেন্সের ব্লগ থেকে পড়ে আসতে পারেন।

অনলাইন ইনকাম করতে চাইলে প্রচুর পরিশ্রম করার মন মানসিকতা থাকতে হবে। আর যেহেতু অনলাইনে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নগদ অর্থ পাওয়া যায় না, সে জন্য অনেকেই খুব দ্রুত হাল ছেড়ে দেয়, যা একটি বড় কারণ অনলাইনে সফলতা না পাওয়ার

২। এফিলিয়েট মার্কেটিং / এফিলিয়েট লিংক বা প্রমোশন

এফিলিয়েট মার্কেটিং

গুগল এডসেন্স ছাড়াও আপনি চাইলেই এফিলিয়েট মার্কেটিং বা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করতে পারবেন।  ২০২১ সালে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম করার অন্যতম সেরা উপায় হচ্ছে এফিলিয়েট লিংক। এফিলিয়েট লিংক ব্যবহার করার জন্য আপনার একটি ওয়েবসাইট লাগবে যে ওয়েবসাইটে আপনি অন্য এফিলিয়েট ওয়েবসাইটের লিংক ব্যবহার করবেন। এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মুল কনসেপ্ট হচ্ছে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট বা পণ্য বা সেবার বিপনণে সহায়তা করা। উদাহরণস্বরূপঃ সাধারনত মানুষ কোন পণ্য বা সেবা অনলাইন থেকে কেনার আগে ঐ প্রোডাক্ট বা পণ্য সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে তারপর প্রোডাক্টটি ক্রয় করে। আপনার কাজ হচ্ছে ঐ সকল প্রোডাক্ট সমূহকে আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা। এখন কেউ যদি আপনার ওয়েবসাইট থেকে ঐ প্রোডাক্টটি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে আপনার বসানো এফিলিয়েট লিংক এ ক্লিক করে প্রোডাক্টটি ক্রয় করে তাহলে আপনি ঐ সকল প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে একটি এফিলিয়েট কমিশন পাবেন। এফিলিয়েট লিংক ব্যবহার বা এফিলিয়েট মার্কেটিং নিজস্ব ওয়েবসাইট ছাড়াও করা যায়। আপনি ইচ্ছা করলে সোশ্যাল মিডিয়া বা কিছু ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরীর প্ল্যাটফর্ম কেউ ব্যবহার করতে পারেন এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য। তবে নিজের ওয়েবসাইটে করা ভালো।

৩। ইউটিউব মার্কেটিং এর  মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম

ইউটিউব মার্কেটিং এর  মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম

অন্যান্য মার্কেটপ্লেস এর তুলনায় ইউটিউব থেকে ইনকাম করা খুবই সহজ। তবে বর্তমানে ইউটিউব এর আপডেট আনার পর অ্যাডসেন্স মনিটাইজ পেতে বা গুগল এডসেন্স এর এড শো করতে আপনাকে অনেক সময় ব্যয় করতে হবে। কেননা ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে হলে YouTube এর  কিছু নীতিমালা আছে সেই নীতিমালা আপনাকে অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে। শুধুমাত্র ভিডিও কন্টেন্ট তৈরি করতে হবে এবং ঐ সকল ভিডিও কন্টেন্ট অনেক মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে অর্থাৎ ভিডিও কন্টেন্ট গুলোকে এমনভাবে অপটিমাইজ করতে হবে যেন অনেক মানুষ আপনার তৈরি করা কন্টেন্টটি দেখে এবং রেস্পন্স করে। এর জন্য আপনার প্রয়োজনীয় উপকরণসমূহ হচ্ছে ভিডিও ক্যামেরা,মোবাইল অথবা কম্পিউটার এবং ভিডিও এডিট করার জন্য ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার। এক্ষেত্রে আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি গ্রো করতে মিনিমাম ৬-১২ মাস সময় লাগতে পারে। এটা নির্ভর করবে আপনার পরিশ্রম ও ডেডিকেশনের উপর।

তবে আপনার ইউটিউব ভিডিওতে মনিটাইজেশন পাওয়ার জন্য কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে।

শর্তগুলো হচ্ছে:

  • গত এক বছরে আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিও ৪,০০০ ঘন্টা দেখতে হবে ও ১,০০০ হাজার সাবস্কাইব অর্জন করতে হবে।
  • আপনার ইউটিউব ভিডিও গুগল অ্যাডভার্টাইজমেন্ট ফ্রেন্ডলি হতে হবে।

৪। ডিজিটাল মার্কেটিং এর  মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম

ডিজিটাল মার্কেটিং

অনলাইনে বিখ্যাত চাকরির ওয়েবসাইট লিংকড ইন এর কথা আপনারা অবশ্যই সবাই শুনেছেন।  এই ওয়েবসাইটে সবচাইতে বেশি যে চাকরির জন্য চাওয়া হয়েছে তা হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং।  সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে পোস্ট করে পণ্যের প্রচারণা, ইমেইল মার্কেটিং, ইউটিউবে বিজ্ঞাপন দিয়ে পন্যের প্রচার করা এবং এসব স্ট্র‍্যাটেজি প্রণয়ন করা সম্পর্কিত বিষয় হল ডিজিটাল মার্কেটিং। ডিজিটাল মার্কেটিং বলতে মূলত ডিজিটাল চ্যানেলগুলোতে সমস্ত মার্কেটিংয়ের কৌশল প্রয়োগ করা কে বুঝায়। এই মার্কেটিং ব্যবস্থায় পণ্য প্রচারের জন্য এসএমএস, সার্চ ইঞ্জিন, ইমেইল, ওয়েবসাইট, সোশ্যাল মিডিয়া এবং মোবাইল ডিভাইসগুলির মতো পরিষেবা ও বিভিন্ন উৎস ব্যবহার করা হয়।

৫। কন্টেন্ট রাইটিং/ ব্লগ অথবা ওয়েবসাইটে আর্টিকেল লিখে আয়

অনলাইনে আয় করার সেরা কয়েকটি উপায়

কন্টেন্ট রাইটিং মূলত লেখালেখির কাজ। লেখালেখির মাধ্যমে আপনি অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।আপনি যদি ওয়েবসাইটের এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখতে পারেন, তাহলে সেই দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে আপনি অনলাইন হতে ভালো পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ব্লগিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং, ইনফো প্রোডাক্ট, লিড জেনারেশন, ফেসবুক মার্কেটিং, গুগল অ্যাডসেন্স ইত্যাদি প্রয়োজনে কন্টেন্ট রাইটারের চাহিদা ব্যাপক। আপনি কনটেন্ট রাইটার হিসেবে অনলাইনে বড় বড় মার্কেট প্লেসে কাজ করতে পারবেন। যেমন: আপওয়ার্ক, ফাইবার, ফ্রিল্যান্সার এই অনলাইন মার্কেট গুলোতে অনেক বড় একটি ক্যাটাগরি রয়েছে, কন্টেন্ট রাইটিং এর উপর। এই সেক্টরে কাজ করতে চাইলে আপনার অবশ্যই লেখালেখির দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কম্পিটিশন অনেক কম হওয়ার কারনে খুব সহজেই কাজ পাওয়া যায় এই সেক্টরে।

বাংলা ম্যাগাজিন /এসপি

Flowers in Chaniaগুগল নিউজ-এ বাংলা ম্যাগাজিনের সর্বশেষ খবর পেতে ফলো করুন।ক্লিক করুন এখানে


বাংলা ম্যাগাজিন ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন



এই বিভাগের আরও সংবাদ

Back to top button